শনিবার, ১৬ ফেব্রুয়ারী, ২০১৩

সরকারের নীতিনির্ধারকদেরকে সহজ বাংলায় বলে রাখছি...


জামায়াত শিবিরের তাণ্ডব রুখতে সরকারের ব্যর্থতা আমাদের নজর এড়ায়নি। স্পষ্টতই এই উগ্রমৌলবাদীদের দলটি গণতন্ত্রে বিশ্বাসী নয় এবং রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা দখলে এরা নিঃশঙ্কোচে সকল ঘৃণ্য কাজই করবে, করতে পারে! একটি স্বাধীন গণতান্ত্রিক দেশে এরকম উগ্রপন্থী কোন দল কীভাবে রাজনীতি করছে সেটি আমাদের বোধগম্য নয়। কোন দেশের স্বাধীনতার বিরোধীতা করে, সেই দেশের মানুষকে হত্যা করে, লুণ্ঠন করে, সম্ভাব্য সকল মানবতাবিরোধী অপরাধ করেও কোন দল সেই দেশে রাজনীতি কেন করবে সেই প্রশ্নের জবাব পৃথিবীর কোন সভ্য নাগরিকের কাছেই নেই!

জামায়াত শিবির কীভাবে এই দেশের রাজনীতিতে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে সেই ইতিহাস আমাদের জানা। মানবিক বোধহীন সামরিক শাসকের ঘৃণ্য রাজনীতির সেই কলঙ্কের ইতিহাস জাতি হিসেবে আমাদেরকে চিরকালই গ্লানিতে ভোগাবে। আমরা আশা করছি বাংলাদেশ সরকারের নীতিনির্ধারকদেরও সেই ইতিহাস জানা রয়েছে। জামায়াত শিবির কীভাবে এই দেশের শাসনতন্ত্রের শিরায় শিরায় প্রবেশ করেছে সেই ঘটনাও আমাদের অজানা নয়। এই দেশের সামরিক বাহিনী, আইনশৃংখলারক্ষী বাহিনী, গোয়েন্দাবাহিনী থেকে সরকারের তৃণমূল পর্যায় পর্যন্ত সুকৌশলে নিজেদের ঘুঁটি পুতেছে এই দলটি দীর্ঘদিন ধরে। আজকের যদি সরকার এই সত্য না জেনে থাকে তাহলে সরকারী দলের রাজনৈতিক প্রজ্ঞা নিয়েই বড়সড় প্রশ্ন উঠবে!
অতীতেও যখন জামায়াত শিবিরের নৈরাজ্য রুখতে সরকার ব্যর্থ হয়েছে তখন আমরা সরকারের নীতিনির্ধারকদের স্মরণ করিয়ে দেয়ার চেষ্টা করেছি, কেন শাসন ব্যবস্থায় এরকম দূর্বলতা দেখা যাচ্ছে! জামায়াত শিবিরের মৌলবাদী পুতুলেরা যখন সামরিক অভ্যুত্থান ঘটানোর চেষ্টা চালিয়েছে, তখনও, সাধারণের কাছে যে তথ্যই আসুক, সরকারের উচ্চপর্যায়ে ঘটনার শেকড় কোথায় সেটি স্পষ্ট হয়েছে বলেই বিশ্বাস করি। যদি তা না হয়ে থাকে, তাহলে সেটি আপনাদের অযোগ্যতা। আপনাদের এই অযোগ্যতা আমাদের নজরে নেই ভাববেন না। এর জবাব দিতেও আমরা প্রস্তুত আছি। জামায়াত শিবিরের সঙ্গে সঙ্গে এদের রক্ষিতাদেরকেও জনসমুদ্রের তোড়ে নিশ্চিহ্ন করে ফেলার মত মুক্ত মানুষ বাংলাদেশে রয়েছে। সহজ বাংলায় বলছি, আশা করছি যতটা নির্বোধ আপনাদেরকে মনে হয় ততটা নির্বোধ আপনারা নন।
৩০ লক্ষ লাশ কাঁধে নিয়ে ৪২ বছর দাঁড়িয়ে আছি বিচারের জন্য। অগণিত মায়ের লজ্জার ঋণে নত হয়ে আছি। আর আজকে উগ্র মৌলবাদী গোষ্ঠীর খুনিরা আমার ভাইয়ের গলায় ছুরি বসাচ্ছে আপনাদের নির্বুদ্ধিতা আর অযোগ্যতার সুযোগে। তীব্র নেশার ঘোরেও ভাববেন না ভাইয়ের লাশ কাঁধে করে কাঁদতে কাঁদতে বাড়ি চলে যাবো। মানবতার শত্রু উগ্রমৌলবাদী জামায়াত শিবির গোষ্ঠীকে এই পূণ্যভূমি থেকে নিশ্চিহ্ন করার গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা আপনারা এখনই না নিলে, রাজপথ থেকে আমরাই সেই ব্যবস্থা করব। জামায়াত শিবিরের পোকারা কোন মায়ের পেটে জন্মায় না। এদের নিশ্চিহ্ন করতে জনরোষের যে জোয়ার অপেক্ষা করে আছে, সেটিকে আপনারা কী নামে ডাকবেন আমাদের জানা নেই। কেবল সহজ বাংলায় বলে রাখি, আপনারা যারা আজকে জামায়াত শিবিরের রক্ষিতার ভূমিকায় নেমেছেন, এদের নৃশংসতা যারা দেখেও দেখছেন না, যারা একটি স্বাধীন রাষ্ট্রের নীতিনির্ধারকের জায়গাতে বসেও নির্বুদ্ধিতার অসহ্য নাটক দেখাচ্ছেন, জামায়াত শিবিরের সঙ্গে তাদেরকেও আমরা ছেড়ে দেবনা।
শাহবাগ আন্দোলন চলবে। চোখে পানি থাকবে, কিন্তু খুনীকে মুক্ত রেখে ভাইয়ের লাশ নিয়ে আমরা ঘরে ফিরব না!
সচলায়তনে প্রকাশিত

ফেসবুক থেকে মন্তব্য করুন
.

কোন মন্তব্য নেই: